স্ত্রী হত্যা: সাবেক এসপি বাবুল আক্তার গ্রেফতার

পাঁচ বছর আগে চট্টগ্রামে স্ত্রী মিতু হ'ত্যা মা'মলায় সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারকে গ্রে'ফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।সাবেক এই এসপিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকা থেকে নেওয়ার পর ম'ঙ্গলবার চট্টগ্রামের পিবিআই তাকে গ্রে'ফতার করে।

এর আগে চট্টগ্রাম মহানগরীর পাহাড়তলী এলাকায় পিবিআই মেট্রো অঞ্চলের কার্যালয়ে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বলে জানান পিবিআইয়ের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) বনজ কুমা'র মজুম'দার।

বনজ কুমা'র মজুম'দার বলেছিলেন, মা'মলার বাদী হিসেবে বাবুল আক্তার ম'ঙ্গলবার চট্টগ্রাম গেছেন।তিনি মা'মলার ত'দন্ত সংশ্লিষ্টদের স'ঙ্গে কথা বলেছেন।এটাকে জিজ্ঞাসাবাদ বা ত'দন্তের বি'ষয়ে জানতে চাওয়া, যে কোনো কিছুই বলা যেতে পারে।

তবে বাবুল আক্তার স্ত্রী হ'ত্যা মা'মলার বাদী হলেও তার শ্বশুরের অ'ভিযোগ, জামাই বাবুল আক্তারই তার মেয়ের হ'ত্যাকাণ্ডে জড়িত।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর ও আর নিজাম রোডের বাসার অদূরে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে খু'ন হন মাহমুদা খানম মিতু। মোটরসাইকেলে আসা তিন হা'মলাকারী মিতুকে কু'পিয়ে ও গু'লি করে হ'ত্যা করে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, গত কয়েক বছরে চাকরিকালীন সময়ে চট্টগ্রামে জ'ঙ্গি দমন অ'ভিযানে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন বাবুল আক্তার। আর এ কারণে জ'ঙ্গিদেরই টার্গেটে ছিলেন তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা। তবে ঘটনার দু’দিন আগে বদলিজনিত কারণে ঢাকায় আসেন এসপি বাবুল আক্তার। ঘটনার দিন ৫ জুন তার নতুন কর্মস্থলে যোগ দেয়ার কথা ছিল। আর এ দিনই ঘটে যায় মর'্মান্তিক এ ঘটনা।

এ ঘটনায় নানা জল্পনা-কল্পনার পর বাবুল আক্তারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর তাকে চাকরি থেকে অব্যা'হতি দেওয়া হয়।

আলোচিত এই হ'ত্যা মা'মলা শুরু থেকে চট্টগ্রামের ডিবি পুলিশ মা'মলাটির ত'দন্ত করে।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *