সুন্দরবনের আগুন নেভেনি ২৪ ঘণ্টায়ও

২৪ ঘণ্টা পার হলেও সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের ২৪ নম্বর কম্পার্টমেন্টের আগু'ন এখনো পুরোপুরি নেভেনি। তিন মাসের মধ্যে সুন্দরবনে ফের লাগা এই আগু'ন বিচ্ছিন'্নভাবে বনের শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানী টহল ফাঁ'ড়ির দুই একর এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে।

গতকাল সোমবার বেলা ১১টার দিকে দাসের ভারানী টহল ফাঁ'ড়ির অন্তর্গত বনে ধোঁয়ার কুণ্ডলী দেখতে পেয়ে আগু'ন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে বন বিভাগ ও স্থানীয় কয়েক শ মানুষ। তাঁরা ফা’য়ার লাইন (আগু'ন লাগা অংশের স'ঙ্গে অন্য অংশের মাটি কে'টে আলাদা করে ছোট নালা তৈরি) কা'টার কাজ শুরু করেন। দুপুরের পরপর যোগ দেয় ফা’য়ার সার্ভিস। তবে এলাকাটি দুর্গম হওয়াতে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত সেখানে পানি পৌঁছাতে পারেননি তাঁরা।

আজ ম'ঙ্গলবার সকাল থেকে ফা’য়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট, বন বিভাগের আশপাশের ৭টি ফাঁ'ড়ি, স্টেশনের কর্মীসহ সিপিজি (বন সুরক্ষা কমিটি) ও স্থানীয় লোকজন আগু'ন নেভাতে কাজ শুরু করেন। সকাল সোয়া ১০টা থেকে ফা’য়ার সার্ভিস তাদের ব্যবহৃত প্রায় ৫০টি পাইপ যুক্ত করে প্রায় ৩ মাইল দূরে মর'া ভোলা নদী থেকে পাম্প করে পানি ছেটানো শুরু করেছে।

সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মো. জয়নাল আবেদীন সকালে ঘটনাস্থল থেকে প্রথম আলোকে বলেন, আগু'ন লাগা এলাকার চারপাশজুড়ে ফা’য়ার লাইন কা'টা হয়েছে। ফা’য়ার সার্ভিসও পানি দিতে শুরু করেছে। বন বিভাগ, ফা’য়ার সার্ভিসের কর্মীর পাশাপাশি সিপিজি সদস্য ও স্থানীয় লোকজন আগু'ন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন। পাশাপাশি কিছু শ্রমিকও নিয়োগ করা হয়েছে। তবে কী পরিমাণ এলাকাজুড়ে ফা’য়ার লাইন কা'টা হয়েছে বা কতটুকু বনভূমির মধ্যে এখন আগু'ন আছে, সে বি'ষয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানাতে পারেননি তিনি। তবে তিনি দাবি করেন, আগু'ন নিয়ন্ত্রণে আছে। কিছু কিছু এলাকাতে ধোঁয়া রয়েছে। যেখানে পানি ছিটানো হচ্ছে।
ফা’য়ার সার্ভিসের বাগেরহাট স্টেশনের উপসহকারী পরিচালক মো. গো'লাম ছরোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা সকাল থেকে কাজ শুরু করেছেন। এলাকাটি দুর্গম এবং পানির উৎস দূরে হওয়াতে কাজ করা একটু কঠিন হচ্ছে। আজ আগু'ন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এদিকে সুন্দরবনে আগু'ন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষ'তির পরিমাণ নিরূপণে গতকাল সন্ধ্যায় তিন সদস্যের একটি ত'দন্ত কমিটি করেছে বন বিভাগ। শরণখোলা রেঞ্জের এসিএফ মো. জয়নাল আবেদীনকে প্রধান করে গঠিত কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন ধানসাগর স্টেশন কর্মক'র্তা মো. ফরিদুল ইসলাম ও শরণখোলা স্টেশন কর্মক'র্তা আবদুল মান্নান। কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে বিভাগীয় বন কর্মক'র্তার কাছে (ডিএফও) প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। জানা গেছে, আগু'ন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের আসার পর কমিটি কাজ শুরু করবে।

সুন্দরবনে লাগা আগু'ন নেভানোর কাজ চলছে
সুন্দরবনে লাগা আগু'ন নেভানোর কাজ চলছেপ্রথম আলো
বাগেরহাটের শরণখোলা উপজে'লার রায়েন্দা ইউনিয়নের দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামে মর'া ভোলা নদী পার হলেই সুন্দরবন। নদী তীর থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে সুন্দরবনের দাসের ভারানী টহল ফাঁ'ড়ি। ওই টহল ফাড়ি থেকেও বেশ দূরে ওই অ'গ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগু'ন নেভাতে দক্ষিণ রাজাপুর, মাঝেরচর ও রসুলপুর গ্রামের শতাধিক গ্রামবাসী যোগ দেন।

কয়েকজন গ্রামবাসী বলেন, এখানে কাছাকাছি কোনো পানির উৎস নেই। এ কারণে আগু'ন নেভাতে বেগ পেতে হচ্ছে। প্রায় দুই একর এলাকায় বিক্ষি'প্ত ভাবে আগু'ন ছড়িয়ে গেছে। শুকনো পাতার মাঝ থেকে এক এক স্থানে হঠাৎ করে ধোঁয়া ও আগু'ন দেখা যাচ্ছে। তবে আশার কথা হচ্ছে, আজ বেলা পৌনে ১১টা থেকে বৃষ্টি হচ্ছে এই এলাকায়।

এর আগে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর এলাকায় আগু'ন লেগে প্রায় চার শতক বনভূমি পুড়ে যায়।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *