বিয়ের ৯ মাস পরই স্যালাইনে বিষ মিশিয়ে স্বামীকে খাওয়ালেন স্ত্রী

চুয়াডা'ঙ্গার দামুড়হুদায় বিয়ের নয় মাস না পেরুতেই স্বামীকে স্যালাইনের সাথে বি’ষ মিশিয়ে খাইয়ে হ’’ত্যাচেষ্টা করেছেন প’রকীয়ায় আসক্ত কাকলী খাতুন নামে এক নারী। স্বামী মাসুদ রানা এখন চুয়াডা'ঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। পরে ওই অ’ভিযোগে কাকলী খাতুনকে গ্রে'’'প্ত ার করা হয়েছে। শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) রাত ২টার দিকে অ’ভিযান চা’লিয়ে দামুড়হুদা উপজে’লার সাড়াবাড়িয়া গ্রাম থেকে তাকে গ্রে'’'প্ত ার করে পুলিশ।

এর আগে রাত সাড়ে ১২টার দিকে মাসুদ রানার মা মমতাজ খাতুন বা’দী হয়ে দর্শনা থানায় একটি হ’’ত্যাচেষ্টা মা’মলা করেন। মা’মলায় আ’সামি করা হয় মাসুদ রানার স্ত্রী কাকলী খাতুন ও প’রকীয়া প্রেমিক মুকুল আলীকে। পুলিশ জানিয়েছে, গ্রে'’'প্ত ারের পর প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে স্বামীকে হ’’ত্যা চেষ্টার কথা স্বীকার করেছে কাকলী খাতুন। মাসুদের পরিবারের সদস্যরা জানান,

জীবননগর উপজে’লার হরিহরনগর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে কাকলী খাতুনের স'ঙ্গে নয় মাস আগে বিয়ে হয় দামুড়হুদা উপজে’লার সাড়াবাড়িয়া গ্রামের কাদির মণ্ডলের ছেলে মাসুদ রানার সাথে। বিয়ের মাস কয়েক পরেই সাড়াবাড়িয়া গ্রামের স্কুলপাড়ার উসমান মোল্লার ছেলে মুকুলের স'ঙ্গে প’রকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে কাকলীর। এক পর্যায়ে ঘর বাঁ’ধার স্বপ্ন দেখে তারা। কিন্তু মাসুম হয়ে যায় তাদের পথে কা’টা। স্বামী মাসুমকে হ’’ত্যা করতে পারলে প’রকীয়া প্রেমিক মুকুল বিয়ে করতে পারবে কাকলী।

পরে মাসুদকে হ’’ত্যার পরিকল্পনা করে কাকলী ও মুকুল। শুক্রবার দুপুরে স্যালাইনের সাথে ঘু'মের ও’ষুধ ও বি’ষ মিশিয়ে স্বামী মাসুদকে হ’’ত্যারচেষ্টা করে কাকলী খাতুন। মুমূর্ষু অবস্থায় স্বামী মাসুদ রানাকে উ’'দ্ধার করে চুয়াডা'ঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মাসুদ রানা জানান, বিয়ের পর থেকে একই গ্রামের মুকুলের সাথে মোবাইল ফোনে কথা ও চ্যাটিং করতো কাকলী। বি’ষয়টি প্রথমে বুঝতে না পারলেও গত ৪ দিন আগে বুঝতে পারি।

বি’ষয়টি নিয়ে কাকলীর সাথে আমা'র বাকবিতণ্ডা হয়। শুক্রবার দুপুরে চাষাবাদ শেষে বাড়ি ফিরি আমি। আমা'র পানি পিপাসা লাগলে কাকলীকে পানি দিতে বলি। সে আমাকে স্যালাইনের পানি দেয়। আমি তা খেয়েই ঘু'মিয়ে পড়ি। এরপর আমা'র বেশ কয়েকবার বমি হয়। তিনি বলেন, এসময় পেছন থেকে আমা'র স্ত্রী কাকলী একটি ওড়না দিয়ে আমা'র গ’লায় জড়িয়ে টান দেয়। আমি ঝাটকা দিলে কাকুলি পড়ে যায়। আমি ঘর থেকে বাইরে বের হওয়ার চেষ্টা করলে পেছন থেকে আমা'র মাথায় ইট দিয়ে আ’ঘা'ত করে কাকলী।

আমি চি’ৎকার করলে পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। পরে আমাকে উ’'দ্ধার করে চুয়াডা'ঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা।চুয়াডা'ঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ক'র্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহবুবুর রহমান জানান, শুক্রবার দুপুরে মাসুদ বি’ষপান করেছে বলে পরিবারের সদস্যরা জানায়। পরে তাকে ওয়াস করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ভর্তি করা হয়েছে। তবে, সে এখনও আ’শঙ্কামুক্ত নয়। আগামী ৭ দিন তাকে পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে। এদিকে গ্রে'’'প্ত ারের পর স্বামীকে হ’’ত্যাচেষ্টার কথা স্বীকার করেন স্ত্রী কাকলী খাতুন।

তিনি বলেন, আমি ও মুকুল মিলে আমা'র স্বামী মাসুদকে হ’’ত্যার পরিকল্পনা করি। পরিকল্পনা অনুযায়ী মুকুল দুদিন আগে ঘু'মের ও’ষুধ কিনে দেয় আমাকে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে আমি পানিতে স্যালাইন, ঘু'মের ও’ষুধ ও আগে থেকেই সংগ্রহ করে রাখা সলুবোরন নামক কী’টনাশ'ক মিশিয়ে দিই। ওই পানি খেয়ে আস্তে আস্তে ঘু'মিয়ে পড়ে মাসুদ।

মুহূর্তেই শুরু হয় বি’ষক্রিয়া। এ বি’ষয়ে দর্শনা থানার ওসি মাহাব্বুর রহমান জানান, মাসুদ রানার মা মমতাজ বেগম বা’দী হয়ে রাতেই কাকলী খাতুন ও তার প’রকীয়া প্রেমিক মুকুলের বি’রু'দ্ধে দর্শনা থানায় একটি মা’মলা দা’য়ের করেছেন। পরে অ’ভিযান চা’লিয়ে অ’ভিযুক্ত স্ত্রী কাকলী খাতুনকে গ্রে'’'প্ত ার করা হয়েছে। প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে স্বামীকে হ’’ত্যাচেষ্টার কথা স্বীকার করেছে কাকলী খাতুন। তাকে আ’দালতে সোপর্দ করা হবে। হ’’ত্যার আরেক পরিকল্পনাকারী মুকুলকে গ্রে'’'প্ত ারে অ’ভিযান চা’লানো হচ্ছে।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *