ছাত্রলীগ নেতার প্যান্ট চুরির ভিডিও ভাইরাল!

রাজশাহীর তানোরে দিনে-দুপুরে প্যান্ট চুরে করে ভাইরাল হয়েছেন জে'লা ছাত্রলীগ নেতা মিজানুর রহমান ওরফে জুয়েল রানা।১০ এপ্রিল (শনিবার) তানোর পৌর এলাকার প্রদীপ সুপার মা'র্কে'টে এ ঘটনা ঘটে। মা'র্কে'টের সিসিটিভি ফুটেজে ঘটনার প্রমাণ পাওয়া যায়। পরে সেই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। অ'ভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল রানা তানোর উপজে'লার চাপড়া এলাকার মমতাজ উদ্দিনের ছেলে।

তিনি জে'লা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে দেখা গেছে, দুজন ক্রেতা দোকান থেকে বেরিয়ে যান। ওই সময় ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল রানা দোকানের সামনে এসে বাইরে টাঙানো একটি জিন্স প্যান্ট নামান। পরে সেই প্যান্ট নিয়ে সোজা মা'র্কেট থেকে বেরিয়ে যান। ঘটনাস্থল প্রদীপ সুপার মা'র্কে'টের স্টাইল কালেকশনের মালিক প্রসেনজিত কুমা'র জানান, দুপুর ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত তিনি দোকানের বাইরে ছিলেন।

এ সময় দোকানে ছিলেন তার ছোট ভাই। তিনি এসে বাইরে ঝোলানো দুটি প্যান্টের একটি পাননি। তার ভাইও বিক্রির বি'ষয়টি নিশ্চিত করতে পারেননি। অনেক খুঁজে সন্ধান না পেয়ে পরদিন পাশের দোকানে থাকা সিসিটিভি ফুটেজ দেখেন। সেখানেই ছাত্রলীগ নেতার প্যান্ট চুরির ঘটনা ধ’রা পড়ে। পরে তিনি নিজেই কথা বলেন ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল রানার স'ঙ্গে। প্রথমে তিনি চুরির ঘটনা অস্বীকার করেন।

বি'ষয়টি বাজার বণিক সমিতির নেতাদের জানালে ওই দিন দুপুরে গোল্লাপাড়া বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও উপজে'লা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক পাপুল সরকারের চেম্বারে সালিস বসে। সেখানে নিজের অ’পরাধ স্বীকার করেন জুয়েল রানা। পরে তার কাছ থেকে প্যান্টের দাম ৩২০ টাকা আ'দায় করে ছেড়ে দেন নেতারা। জানতে চাইলে ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল রানা বলেন, ‘আমি প্যান্টটা চুরি করিনি।

মজা করেছি। সন্ধ্যায় মজা করে পরের দিন সকালে ওই প্যান্ট পরে এসে টাকা দিয়ে দিয়েছি।’তিনি আরও দাবি করেন, একজন অ’পরিচিত মানুষ আমাকে মা'র্কে'টের পেছনে পানের স'ঙ্গে ঘু'মের ওষুধ খাওয়ান। এরপর থেকে আমি আর কথা বলতে পারিনি। নে'শা নে'শা লাগছিল। বি'ষয়টি অনেকেই জেনে যাব'ে, তাই কথা না বলে প্যান্টটা নিয়ে যাই।’ আপনাকে সিসিটিভির ফুটেজে আর ১০টা মানুষের মতোই স্বাভাবিকভাবে হেঁটে যেতে দেখা গেছে,

এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বি'ষয়টি এড়িয়ে যান।জানতে চাইলে গোল্লাপাড়া বাজার বণিক সমিতির সভাপতি সারওয়ারের মোবাইল ফোনে কল করা হলে বন্ধ পাওয়া যায়।এ বি'ষয়ে রাজশাহী জে'লা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেরাজুল ইসলাম মেরাজ বলেন, ‘ঘটনাটি শুনেছি। এ বি'ষয়ে কোনো ব্যবসায়ী বা বাজার কমিটি কোনো অ'ভিযোগ করলে আলোচনা সা'পেক্ষে জুয়েলের বিরু'দ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

About admin

Check Also

খেলতে যাই

খেলতে যাই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *