খালেদা জিয়ার করোনা রিপোর্টের বিষয়ে অবশেষে যা বলল পরিবার

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া করো’নাভাইরাসে আ'ক্রা'ন্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদ'প্ত র। রোববার আইসিডিডিআরবির রিপোর্টে তার কোভিড পরীক্ষার ফল পজিটিভ এসেছে। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ে। রাজনৈতিক মহলে শুরু হয় আলোচনা। তবে বিএনপি কিংবা খালেদা জিয়ার পরিবারের কেউ এখনও পর্যন্ত তার করো’না পজিটিভ হওয়ার বি'ষয়ে কোনো বক্তব্য দেননি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং এ বি'ষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তারা এখনও এ বি'ষয়ে কিছুই জানে না বলে দাবি করেছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের এক সদস্য সরাসরি দাবি করেছেন বিএনপি নেত্রীর করো’না পজিটিভ হওয়ার তথ্য ভুল। তার করো’নার নমুনা পরীক্ষাই করা হয়নি।গু'লশানের ফিরোজায় বসবাস করা খালেদা জিয়ার নিয়মিত খবরাখবর রাখেন ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার ও বোন সেলিমা রহমান।

এ বি'ষয়ে খালেদা জিয়ার ভাই শামীম ইস্কান্দার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘নো কমেন্ট’। আর খালেদা জিয়ার ছোট বোন সেলিমা রহমান বলেন, ‘আমি তো বেশ কয়েকদিন ধরে যাইনি। শরীরটা ভালো না। এ সম্পর্কে আমি কিছুই বলতে পারবো না।’ খালেদা জিয়ার চিকিৎসার নিয়মিত দেখভাল করেন ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন ও খালেদা জিয়ার ভাগনে ও ব্যক্তিগত চিকিৎসক মামুন।

এ বি'ষয়ে ডা. মামুন যুগান্তরকে বলেন, খালেদা জিয়ার করো’না রিপোর্ট ‘পজিটিভ’ বলে যে তথ্য ছড়াচ্ছে সরকার তা ভিত্তিহীন ও মিথ্যা। তিনি বলেন, ‘উনার করো’না পরীক্ষা করা হয়নি। যে রিপোর্ট ভাইরাল হয়েছে, এটা ভুয়া। এটা সঠিক নয়।’এ বি'ষয়ে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক মামুনের বরাত দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান যুগান্তরকে বলেন, এটি চেয়ারপারসনের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা।

করো’না পরীক্ষার জন্য নমুনা নেওয়া হয়নি। খালেদা জিয়ার চিকিৎসক ডা. জাহিদও করো’না আ'ক্রা'ন্ত।বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গণমাধ্যমকে বলেন, আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খালেদা জিয়ার করো’না পজিটিভ রিপোর্ট দেখেছি। আমি ব্যক্তিগতভাবে গু'লশান কার্যালয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করছি। এখন পর্যন্ত আমি এ বি'ষয়ে নিশ্চিত নই।তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খালেদা জিয়ার করো’না টেস্টের রিপোর্টের একটি কপি ভাইরাল হয়েছে। সেটি কিউআর কোড স্ক্যান করলে স্বাস্থ্য অধিদ'প্ত রের যে ওয়েবসাইট থেকে পরীক্ষার ফল জানা যায় সেখানে চলে যায়।

সেখানে এই কপি'টি দেখা যায়। ৭৫ বছর বয়সি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দুই মা'মলায় দ'ণ্ডিত। দ'ণ্ড নিয়ে তিন বছর আগে তাকে কারা'গারে যেতে হয়।দেশে করো’নাভাইরাসের সংক্রমণ শুরুর পর পরিবারের আবেদনে সরকার গত বছরের ২৫ মা'র্চ ‘মানবিক বিবেচনায়’ শর্তসা'পেক্ষে তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়।তখন থেকে তিনি গু'লশানে নিজের ভাড়া বাসা ফিরোজায় থেকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তার স'ঙ্গে বাইরের কারও যোগাযোগও সীমিত।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *