বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে কনে অপহরণ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি

বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে কনেকে অ’পহরণ করে হ'ত্যার করা হয়েছে। সোমবার বিয়ের ঠিক পূর্ব মুহূর্তে কনে আইজাদা কানাতবেকোভা’কে (২৭) সশস্ত্র অবস্থায় তিন ব্যক্তি জোর করে তুলে নিয়ে যায়। তাকে একটি গাড়িতে ঠেলে প্রবেশ করায়। ধারণা করা হয়, ওই তিনজনের মধ্যে একজন তাকে জোর করে বিয়ে করতে চেয়েছিল। নিরাপ'ত্তামূলক ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদ্যুতবেগে ছড়িয়ে পড়ে। সবাই এই অ’পহরণ ঘটনায় ক্ষো'ভ প্রকাশ করেন। কিন্তু যে গাড়িতে করে ওই কনেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তা শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

বুধবার (৭ এপ্রিল) তবে তারা পরিত্য'ক্ত গাড়িতে মিস আইজাদার মৃ'তদে'হ উ'দ্ধার করেছে। কিরগিজস্তানের রাজধানী বিশকেকের বাইরে একটি ক্ষেতের ভিতর একটি পরিত্য'ক্ত গাড়ির দিকে ছুটে যায় উ'দ্ধার অ'ভিযানের একটি শেফার্ড কুকুর এবং এতে উদ্বেগ বৃ'দ্ধি পায়। সেখানে গিয়ে পুলিশ উ'দ্ধার করে মৃ'তদে'হ ও ওই গাড়িটি। ওই যুবতীর অ’পহরণকারী এবং সন্দে'হজনক খু'নিকেও মৃ'ত অবস্থায় পায় পুলিশ। তারা বলেছে, অ’পহরণকারী ও খু'নি ছু'রিকাঘা'তে মা'রা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে নিজেকে নিজেই ছু'রি মেরে সে আ'ত্মহ'ত্যা করেছে।

আইজাদার পরিবার বলেছে, ওই যুবককে চিনতো আইজাদা। তারা ওই যুবককে সাবধান করে দিয়েছিল, তাদের কন্যাকে বির'ক্ত না করতে। ওই তিন অ’পহরণকারীর মধ্যে একজনকে আট'ক করেছে পুলিশ। দেশটিতে জোর করে বিয়ের জন্য নারীকে অ’পহরণ একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে খবরে বলা হয়েছে। অনেকে মনে করেন, কনে অ’পহরণ কিরগিজদের একটি পুরনো রীতি। তবে কিছু গবেষক যুক্তি দেখান যে, এই ধা'রা মধ্য এশিয়ার এই দেশটিতে মাত্র কয়েক দশক আগে থেকে জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

কিন্তু ২০১৩ সালে এই ধা'রাকে নি'ষি'দ্ধ করা হয়েছে। তবে তারপরও তা অব্যা'হত আছে। কারণ, দোষী ব্যক্তিকে অ'ভিযুক্ত করে সাজা দেয়ার ঘটনা বিরল। আবার প্রতিশোধ নেয়ার ভয়ে নারীরা এসব বি'ষয়ে রিপোর্ট করতে চান না। জাতিসং'ঘের হিসাবে কিরগিজস্তানে প্রতি ৫ জন যুবতীর মধ্যে একজন অ’পহৃত হওয়ার পর তার বিয়ে হয়। যখনই কিরগিজস্তানে একজন কিশোর নির্দিষ্ট একটি বয়সে পৌঁছে তখনই পিতামাতা ও অ'ভিভাবকরা তাকে বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করেন। অনেক ক্ষেত্রে,

বিশেষ করে দরিদ্র পরিবারগু'লোতে কনে অ’পহরণ একটি সস্তা ও দ্রুততর উপায়। আইজাদাকে অ’পহরণ ও হ'ত্যার প্রতিবাদে প্রায় ৫০০ মানুষ বৃহস্পতিবার বিক্ষো'ভ করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সামনে। এ সময় তারা ‘শেম শেম’ বলে স্লোগান দিয়েছেন এবং মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছেন। বার্তা সংস্থা এএফপিকে স্থানীয় একজন সাংবাদিক মাহিনুর নিয়াজোভা বলেছেন,

চুপচাপ থাকা একেবারে অসম্ভব। নারীর প্রতি যে সহিং'সতা দেখছি, নারীদের অধিকারে যে ঘাটতি তাতে চুপ করে থাকা যায় না। এ ঘটনায় বিক্ষো'ভকারীদের ধৈর্য্য ধ’রার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী উলুগবেক শারিপোভ। বলেছেন, পুলিশি ত'দন্ত চলছে। তবে অন্যরা তার পদত্যাগ দাবি করেছেন। কারো কারো কাছে পোস্টারে লেখা ছিল, আইজাদাকে খু'নের জন্য জবাব দেবে কে? এখনও কি খু'ন একটি রীতি হয়ে আছে? আইজাদার মৃ'ত্যুকে একটি ট্রাজেডি আখ্যায়িত করে এর নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট সাদির জাপারোভ। তিনি এর জন্য পুরো দেশ বেদনা'হত বলে মন্তব্য করেছেন।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *