মাশরাফির মনে কি ছিল?

সাকিব-বিসিবি ইস্যুতে টালমাটাল দেশের ক্রিকেট। দেশসেরা ক্রিকেটার ও বিসিবি ক'র্তাদের ঠান্ডা এই লড়াইয়ে ঢাকা পড়েছে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম ওয়ানডের ব্য'র্থতাও।

সম্প্রতি একটি ক্রিকেটভিত্তিক অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও কর্মক'র্তাদের নিয়ে রীতিমতো যেন বো'মা ফাটিয়েছেন দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

সাকিবের সেই সাক্ষাৎকারের পর থেকেই নড়েচড়ে বসেছে ক্রিকেট বোর্ড। সাকিবের বিরু'দ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে কিনা সেই সি'দ্ধান্ত নিতেও বোর্ড সভায় বসছে বিসিবি ক'র্তারা।

দেশের ক্রিকে'টের ‘পোস্টার বয়’ খ্যাত সাকিব আল হাসানকে নিয়ে যখন ক্রিকেটপাড়ায় এই অবস্থা, তখনই সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর'্তুজার কিছু মন্তব্য।

সম্প্রতি দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন নড়াইল-২ আসনের এমপি ও জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মতুর্জা।

মাশরাফির দেওয়া সেই সাক্ষাৎকারেও বিসিবির প্রতি সাবেক এই অধিনায়কের অসন্তুষ্টি ফুটে স্পষ্টভাবেই ফুটে উঠেছে।

দেশের জার্সি গায়ে মাশরাফি মাঠে নেমেছিলেন সবশেষ ২০২০ সালের ৬ মা'র্চ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। এরপরই বিশ্বব্যাপী মহা'মা'রি করো’নাভাইরাসের প্রকো'প ে থমকে গিয়েছিল মাঠের ক্রিকেট। যার কারণে দীর্ঘ ৯ মাস বিরতির পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঘরের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে ক্রিকে'টে ফেরে টাইগাররা। লম্বা বিরতির পর সাকিব-তামিমর'া মাঠে ফিরলেও লাল-সবুজের জার্সি গায়ে জড়িয়ে আর মাঠে ফেরা হয়নি মাশরাফির। ক্যারবীয়দের বিপক্ষে টাইগারদের ওয়ানডে প্রাথমিক দল তাকে বাদ রেখেই ঘোষণা করা হয়।

দল ঘোষণার পরে মাশরাফিকে স্কোয়াড থেকে বাদ দেওয়ার কারণ হিসেবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানিয়েছিলেন, মূলত নতুনদের জায়গা দিতেই মাশরাফিকে দলে রাখা হয়নি।

আরেক নির্বাচক হাবিবুল বাশার জানিয়েছিলেন, এমন সি'দ্ধান্ত নেওয়ার আগে মাশরাফির স'ঙ্গে প্রধান নির্বাচকের কথা হয়েছে। আমা'দের জন্য ওকে বি'ষয়টা জানানো গু'রুত্বপূর্ণ ছিল।

ক্যারবীয়দের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ শেষ হয়েছে, সময় গড়িয়েছে কিন্তু টাইগার ভক্তদের মনে একটি প্রশ্ন থেকেই গেছে। অধিনায়ক হিসেবে নিজের শেষ ম্যাচ খেলার পরের সিরিজেই ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়া মাশরাফির স'ঙ্গে নির্বাচকদের কি আলোচনা হয়েছিল?

সম্প্রতি বেসরকারি একটি টেলিভিশনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সেই প্রশ্নই ছুড়ে দেওয়া হয়েছিল মাশরাফির কাছে। টাইগার সাবেক এই অধিনায়ক সরাসরিই জানালেন ‘না’। এই বি'ষয়ে আমা'র স'ঙ্গে তাদের কোনো আলোচনা হয়নি। তবে নান্নু ভাইয়ের স'ঙ্গে আমা'র কথা হয়েছিল। কিন্তু সেই আলোচনায় এই বি'ষেয়ে কোনো কিছুই ছিল না।

এরপর মাশরাফি যোগ করেন, ‘এর থেকে বেশি বিস্তারিততে যাব'ো না। তবে কিছুটা সত্যি কথা আমি আশা করেছিলাম। যতোটুকু বলেছে এর চেয়ে আরও কিছুটা সত্য তো আমি আশা করতেই পারি।’

দল থেকে বাদ পড়ার ওই সময়ে মাশরাফির ফিটনেস ইস্যু নিয়েও কথা উঠেছিল। খোদ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, মাশরাফির ফিটনেসের কথা চিন্তা করলে ওর বাদ পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।

মাশরাফিও কি তাই মনে করেন? কিছুটা দম নিয়ে মাশরাফি বলতে শুরু করলেন, ‘আমা'র তো ফিটনেস কোনোদিন ফেল নাই। আমি তো কখনো ক্যামেরার সামনে এগু'লো বলিও নাই। আবার অনেককে বলতে শুনেছি, মাশরাফি পুরোপুটি ফিট নাও থাকতে পারে। আমি তখন অবাক হয়েছি এরা আসলে কতটুকু তথ্য রাখে? বাইরের একজন দর্শক হিসেবে এমন কথা বলতে পারেন কিন্তু বিসিবির স'ঙ্গে সম্পূক্ত থেকে কেউ যখন এমন কথা বলতেছে তখন আমা'র কাছে অবাক লাগে, এরা আসলে কতটুকু তথ্য রাখেন? তারা আদৌ এরা অফিস করে?’

মাশরাফি বলেন, ‘আমা'র যতই ইনজুরি আসুক, যা কিছু আসুক, গত ২০ বছরে একটা ফিটনেস টেস্টেও আমা'র ফেল নাই। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) তো আজ থেকে না। ৮০’র (১৯৮০ সাল) পর থেকে ক্রিকেট বোর্ড। আমি ৮০ সালের খেলোয়াড় না, তবে ২০০১ থেকে শুরু করে ২০২০ সাল পর্যন্ত একটা ফিটনেস টেস্টের পরীক্ষার তথ্য বের করে দেন যে, মাশরাফির ফেল আছে।’

About admin

Check Also

হাসপাতালে সাইফউদ্দিন

ব্যাট করতে এসে হেলমেটে আঘা'ত পান সাইফউদ্দিন। এতে গু'রুতর ইনজুরিতে পড়েন এই পেস অলরাউন্ডার। যার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *