বয়সে অয় না কিন্তু আমি তো বিয়া করতে চাইছলাম,

মা'দরাসা পড়ুয়া এক ছাত্রীকে বিয়ের কথা বলে ধ'র্ষণ করে ইজিবাইক চালক মনির মিয়া (১৭)। মা'মলা হওয়ার পর থেকেই পলাতক ছিল সে। অবশেষে এক মাস পর গত ম'ঙ্গলবার রাতে র‌্যাব'-১৪ এর একটি দলের হাতে ধ’রা পড়ে।

পরে বুধবার সকালে তাকে ময়মনসিংহের নান্দাইল থানায় হস্তান্তর করা হয়। থানায় থাকা অবস্থায় ধ'র্ষণকাণ্ডে অ'ভিযুক্ত কিশোর বলে, ‘আমি তো দোষী, তবে তারে তো বিয়া করতে চাইছিলাম, কিন্তু বয়স অয় না যে’।

স্থানীয় সূত্র জানায়, নান্দাইলের একটি গ্রামের দিনমজুরের কিশোরী কন্যা স্থানীয় একটি মা'দরাসায় নবম শ্রেণিতে পড়ে। মা'দরাসায় ও প্রাইভেটে যাওয়া আসার পথে প্রায়ই কিশোরীকে উত্ত্য'ক্ত করত এলাকার ইজিবাইক চালক আবু ছাঈদের ছেলে মনির মিয়া (১৭)।

ঘটনাটি নিয়ে বিচার চাইলেও কোনো ধরনের বিচার পায়নি কিশোরীর পরিবার। এ অবস্থায় গত ১০ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ৯টার দিকে কিশোরী তার বাবাকে পাশের বাড়ি থেকে ডেকে আনতে গেলে মনির তার পথ আট'কিয়ে দাঁড়ায়।

ধ'র্ষণের শিকার কিশোরী জানায়, এ সময় মনির তাকে বিয়ের কথা বলে ধ'র্ষণ করে। পরে মনির চলে যেতে চাইলে তাকে জাপটে ধরে কিশোরী চিৎকার দেয়। চিৎকার শুনে লোকজন ছুটে এলেও দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরদিন এলাকায় বিচার চাইলে স্থানীয় সালিসকারীরা বসে ধ'র্ষকের স'ঙ্গে কিশোরীর বিয়ের সি'দ্ধান্ত ছাড়াও আইনি পদ'ক্ষেপ না নেওয়ার সি'দ্ধান্ত নেয়। কিন্তু সালিসের সি'দ্ধান্ত কার্যকরী না হওয়ায় পাঁচ দিন পর কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে থানায় মা'মলা দায়ের করেন।

ঘটনাটি মীমাংসা করতে সালিশের নেতৃত্ব দেন স্থানীয় ইউপি সদস্য জিলু মিয়া। এ ছাড়াও ছিলেন আবু ছাঈদ, সুমন, মজিদ, ম'দিনা আক্তার, পাবেল মিয়া ও আবু ছিদ্দিক। তাদের হস্ত'ক্ষেপে ঘটনাটি ধামাচাপা পড়তে বসেছিল। কিন্তু থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনা ত'দন্তে নামে।

এদিকে, মা'মলার পরপরই গা ঢাকা দেয় মনির। পুলিশ খুঁজে তাকে পাচ্ছিল না। অবশেষে প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঢাকার সাভারের আশুলিয়া এলাকার এক আ'ত্মীয়ের বাসা থেকে গত ম'ঙ্গলবার দুপুরে গ্রে''প্ত ার করে র‌্যাব'-১৪ এর একটি দল। পরে নান্দাইল থানায় হস্তান্তর করা হয়।

থানায় থাকা ধ'র্ষণে অ'ভিযুক্ত মনির জানায়, সে একদিন মেয়েটিকে ধ'র্ষণ করেছে। তবে দুজনের মধ্যে বোঝাপড়া ছিল। ধ’রা খাওয়ায় মেয়েটি তাকে ফাঁ'সিয়ে দেয়। এরপর বিয়ে করতে চাচ্ছিল। কিন্তু বয়স কম হওয়ায় তা সম্ভব হয়নি। এ অবস্থায় ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ফয়সালা করতে চায় তার পরিবার। কিন্তু মেয়ের পরিবার এক লাখ টাকা চাওয়ায় দেওয়া সম্ভব হয়নি।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *