ইয়াবা সেবনের পর শারীরিক সম্পর্ক, এরপর তৃতীয় লিঙ্গের আলমগীরকে হত্যা

যশোরের অভ'য়নগরে তৃতীয় লি'ঙ্গের আলমগীর হাওলাদারকে শ্বা'সরোধে হ'ত্যা করে তারই তিন বন্ধু। হ'ত্যাকাণ্ডের স'ঙ্গে জড়িত আট'ক সাগর মোল্যা সোমবার (৮ মা'র্চ) যশোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আ'দালতের বিচারক মাহাদী হাসানের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানব'ন্দিতে হ'ত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেন। হ'ত্যাকাণ্ডে ইয়াছিন' ও আবুল কালামের জড়িত থাকার কথাও স্বীকার করেন তিনি।

আট'ক সাগর মোল্যা উপজে'লার পাঁচকবর এলাকার স্বপন মোল্যার ছেলে। পলাতক ইয়াছিন' ও আবুল কালাম উপজে'লার ধোপদী গ্রামের ফকিরবাগান এলাকার বাসিন্দা।

সাগর মোল্যার দেওয়া স্বীকারোক্তিতে হ'ত্যাকাণ্ডের বর্ণনা মোতাবেক নি'হত আলমগীর হাওলাদার, ইয়াছিন', আবুল কালাম ও সাগর মোল্যা চার বন্ধু। দীর্ঘদিন তারা একস'ঙ্গে ইয়াবা সেবন করে আসছেন। ২ মা'র্চ ম'ঙ্গলবার সন্ধ্যায় ইয়াছিন' ও আবুল কালাম মোবাইল ফোনে আলমগীরকে ইয়াবা নিয়ে ফকিরবাগানে আসতে বলেন। রাতে চার বন্ধু ওই বাগানে একস'ঙ্গে ইয়াবা সেবন করেন। এরপর ইয়াছিন' ও আবুল কালাম আলমগীরের স'ঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করে।

বি'ষয়টি আলমগীর জানিয়ে দেবে বলে হু’মকি দেন। এ নিয়ে কথাকা'টাকাটি শুরু হলে একপর্যায়ে তারা তিনজন আলমগীরকে শ্বা'সরোধে হ'ত্যা করেন। তখনই বাগানের একটি গাছের স'ঙ্গে হাত-পা বেঁধে বিব'স্ত্র অবস্থায় রেখে পালিয়ে যান।

প্রসংগত গত ৩ মা'র্চ বুধবার সকালে উপজে'লার ধোপাদী গ্রামের ফকিরবাগানে একটি দেবদারুগাছের স'ঙ্গে হাত-পা বাঁধা গলায় ফাঁ'স দেওয়া বিব'স্ত্র অবস্থায় আলমগীর হাওলাদারের লা'শ উ'দ্ধার করে অভ'য়নগর থানা পুলিশ। এ ব্যাপারে নি'হতের মা আমেনা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাত আ'সামি করে থানায় মা'মলা দায়ের করেন। যার নম্বর ৭। মা'মলার ত'দন্তকারী কর্মক'র্তা অভ'য়নগর থানার এসআই গৌতম কুমা'র নি'হত আলমগীরের মোবাইল ফোনের কললিস্ট দেখে সন্দে'হভাজন সাগর মোল্যাকে আট'ক করেন।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *