একসঙ্গে সুখবর পাচ্ছেন ২০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি ও নির্দেশনা অনুযায়ী প্রত্যেক উপজে'লায় একটি করে স্কুল এবং কলেজ সরকারি করা হয়েছে।  কলেজ সরকারি হলেও তিন বছরে আত্তীকৃত হননি এসব কলেজের প্রায় ২০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী। এরমধ্যে অনেকে অবসরে চলে গেছেন, দেড় হাজার শিক্ষক-কর্মচারী মা'রা গেছেন।

শিক্ষকরা কয়েক দফা আন্দোলন ও আল্টিমেটাম দিয়েও কোনো সুখবর পাননি। অবশেষে নতুন জাতীয়করণ হওয়া ৩০৩টি কলেজের জনবল আত্তীকরণের উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

যে কাজ গত তিন বছরে শেষ হয়নি সেটি এখন চার স'প্ত াহের মধ্যে শেষ করতে ২০টি টিম গঠন করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে সব শিক্ষক-কর্মচারীর কাগজপত্র যাচাইবাছাই করে তা চূড়ান্ত করতে হবে কমিটিকে। এরপর তা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এমন উদ্যোগে আশ্বস্ত 'হতে পারছেন না শিক্ষকরা। তারা বলছেন, এর আগেও এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু কার্যকর কিছুই হয়নি। দৃশ্যমান কিছু না হওয়া পর্যন্ত আমর'া এসব উদ্যোগে বিশ্বা'সী না।

জানা গেছে, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেনের সভাপতিত্বে একটি সভা হয়েছে। সেখানে সি'দ্ধান্ত হয়, জাতীয়করণ হওয়া কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের আত্তীকরণ করতে দ্রুত কাগজপত্র যাচাইবাছাই করা হবে। সেজন্য ২০টি টিম কাজ করবে। এসব টিমের কাজ তদারকি করতে অতিরিক্ত সচিবদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ছুটির দিনেও কাজ করতে টিমের স'ঙ্গে জড়িতদের জন্য প্রায় ২৯ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে।

এসব টিম আগামী চার স'প্ত াহের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী সরকারি হওয়া ৩০৩টি কলেজের মধ্যে ১৮২টি কলেজের পদ সৃজনের জন্য শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগ সংক্রা'ন্ত কাগজপত্র যাচাইবাছাই শেষ করবে। অবশিষ্ট কলেজগু'লোর যাচাই কার্যক্রম এরই মধ্যে শেষ হয়েছে।

দ্রুত যাচাই কাজ শেষ করতে গঠিত ২০ টিমের কর্মপরিকল্পনাও নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এগু'লো হলো- আগামী চার স'প্ত াহের মধ্যে কলেজগু'লোর কাগজপত্র যাচাইবাছাই শেষ করা, টিম প্রধানদের স্ব-স্ব শাখায় কর্মর'ত প্রশাসনিক কর্মক'র্তা ও কর্মচারী ক'র্তৃক বাছাই কার্যক্রম শেষে চূড়ান্ত কার্যবিবরণী প্রস্তুত করা, পদ সৃজনের কাজ দ্রুত শেষ করতে এ কার্যক্রমের স'ঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মক'র্তা-কর্মচারীদের সম্মানী প্রদানের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান করার জন্য প্রশাসন ও অর্থ অনুবিভাগকে অনুরোধ করা, তদারককারী কর্মক'র্তা ক'র্তৃক প্রতি স'প্ত াহ শেষে তার অধীন টিমের কাজের অগ্রগতি অবহিত করা এবং অত্যাব'শ্যক না হলে যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনো প্রকার ছুটি ভোগ না করা।

জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, আমি সচিব হয়ে আসার পর থেকেই এ কাজটি দ্রুত শেষ করার উদ্যোগ নিয়েছি। এর আগে ৫টি করে দিয়েছিলাম। করো’নার কারণে গতি একটু কমে গিয়েছিল। আত্তীকৃত কাজটি আরও দ্রুত শেষ করতে ২০টি টিম করে নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিয়েছি। বাজেট প্রস'ঙ্গে তিনি বলেন, তারা সম্মানী বাবদ একটি প্রস্তাব দিয়েছে, সেটি এখনও অনুমোদন হয়নি।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *