মেয়েকে ধর্ষণের পর বাবাকে হোটেলে ডেকে নিয়ে ছাত্রলীগের সাবেক নেতার মারধর

মা'দারীপুরের শিবচরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এক ছাত্রলীগ নেতার বিরু'দ্ধে নবম শ্রেণির এক মা'দ্রাসাছাত্রীকে ধ'র্ষণের অ'ভিযোগে মা'মলা হয়েছে। এই ঘটনার বিচার চাওয়ায় উল্টো অ'ভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা আজ শনিবার সকালে মেয়েটির বাবাকে মা'রধর করেছেন বলে অ'ভিযোগ করা হয়েছে। এ বি'ষয়ে খবর পেয়ে মা'দারীপুর শহরের একটি আবাসিক হোটেল থেকে মেয়েটির বাবাকে উ'দ্ধার করে পুলিশ। একই সময় পুলিশ অ'ভিযুক্ত ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকেও গ্রে''প্ত ার করে।

অ'ভিযুক্ত ছাত্রলীগের ওই সাবেক নেতার নাম মোস্তাফিজুর রহমান ওরফে নাসির (২৮)। তিনি বাঁশকান্দি ইউনিয়নের মৃ'জারচর মুন্সিকান্দি এলাকার শাহাবুদ্দিন মুনশির ছেলে। নাসির জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক ও মা'দারীপুর ছাত্রকল্যাণ পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক। এ ছাড়া তিনি স্থগিত হওয়ার আগপর্যন্ত বাঁশকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রচারণাও চালিয়েছিলেন।

অ'ভিযুক্ত ব্যক্তির নাম মোস্তাফিজুর রহমান ওরফে নাসির (২৮)। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক ও মা'দারীপুর ছাত্রকল্যাণ পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক।

XMA Header Image
পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্র জানায়, প্রায় দুই মাস আগে ইউপি নির্বাচনে প্রচার–প্রচারণায় নেমে মোস্তাফিজুরের স'ঙ্গে পরিচয় হয় ওই মা'দ্রাসাছাত্রীর (১৪)। একপর্যায়ে মোস্তাফিজুর বিয়ের আশ্বা'স দিয়ে ওই মা'দ্রাসাছাত্রীকে প্রেমের ফাঁ'দে ফেলেন। ২১ মে (শুক্রবার) সকালে মোস্তাফিজুর ওই মা'দ্রাসাছাত্রীর বাড়িতে আসেন এবং নবম শ্রেণির গাইড কিনে দেওয়ার কথা বলে তাঁকে মোটরসাইকেলে নিয়ে বের হন। কিন্তু মোস্তাফিজুর বইয়ের দোকানে না গিয়ে তাঁরই এক বন্ধুর বাড়িতে ওই ছাত্রীকে নিয়ে যান। সেখানে একটি কক্ষে আট'কে রেখে তিনি ওই ছাত্রীকে ধ'র্ষণ করেন।

একপর্যায়ে স্থানীয় লোকজন বি'ষয়টি টের পেয়ে ওই ঘরের দরজা ভেঙে মেয়েটিকে উ'দ্ধার করেন। এ সময় দৌড়ে পালিয়ে যান মোস্তাফিজুর। পরে মেয়েটির পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে গু'রুতর অবস্থায় মা'দারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় মাতবরের মাধ্যমে সালিস বৈঠক ডাকা হয়। কিন্তু সেখানে কোনো বিচার না পাওয়ায় ওই মা'দ্রাসাছাত্রীর বাবা গত ২৫ মে নারী ও শিশু নি'র্যাতন দমন বিশেষ আ'দালতে ধ'র্ষণের অ'ভিযোগ এনে মা'মলা দায়ের করেন। এতে মোস্তাফিজুরকে আ'সামি করা হয়। একই স'ঙ্গে অজ্ঞাত আরও ২-৩ জনকে আ'সামি করা হয়।
ধ'র্ষণের অ'ভিযোগে গ্রে''প্ত ার ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান। শনিবার দুপুরে মা'দারীপুর সদর থানার সামনে
ধ'র্ষণের অ'ভিযোগে গ্রে''প্ত ার ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান। শনিবার দুপুরে মা'দারীপুর সদর থানার সামনেপ্রথম আলো

XMA Header Image
বি'ষয়টি মীমাংসা করার কথা বলে ধ'র্ষণের শিকার মা'দ্রাসাছাত্রীর বাবাকে আজ সকালে মা'দারীপুর শহরের একটি আবাসিক হোটেলে ডেকে আনেন। এরপর মোস্তাফিজুর তাঁকে মা'মলাটি তুলে নিতে অনুরোধ জানান। কিন্তু মেয়ের বাবা মা'মলা তুলে নিতে অস্বীকার করলে তাঁকে বেদম মা'রধর করা হয়। বি'ষয়টি বুঝতে পেরে হোটেলের এক কর্মচারী জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল দেন। পরে সদর থানা-পুলিশ ওই হোটেলে গিয়ে ভুক্তভোগীকে উ'দ্ধার করেন। এ সময় পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ মোস্তাফিজুরকে গ্রে''প্ত ার করে থানায় নিয়ে যায়।

ওরা জোর করে আমা'র স্টেটমেন্ট নিতে চায়। আমি দিতে না চাইলে ওরা আমাকে কিল–ঘু'ষ ি দিতে থাকে। আমা'র মেয়ের স'ঙ্গে যে এই খারাপ কাজ করেছে, তার স'ঙ্গে কোনো আপস আমি চাই না। আমি তার কঠোর বিচার চাই।

মা'রধরের শিকার মেয়েটির বাবা ও মা'মলার বাদী

মেয়েটির বাবা প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি হোটেলে যেতে রাজি ছিলাম না। কিন্তু মোস্তাফিজুর আমাকে খুব অনুরোধ করে হোটেলে ডাকে। ওরা জোর করে আমা'র স্টেটমেন্ট নিতে চায়। আমি দিতে না চাইলে ওরা আমাকে কিল–ঘু'ষ ি দিতে থাকে। আমা'র মেয়ের স'ঙ্গে যে এই খারাপ কাজ করেছে, তার স'ঙ্গে কোনো আপস আমি চাই না। আমি তার কঠোর বিচার চাই।’

অ'ভিযোগের বি'ষয়ে জানতে চাইলে মোস্তাফিজুর থানায় বসে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমা'র স'ঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মেয়েটি আমা'র স'ঙ্গে স্বেচ্ছায় চলাফেরা করে। কিন্তু ওই মেয়ে ও তার পরিবার আমাকে এখন ফাঁ'সিয়ে দিয়েছে।’ হোটেলে নিয়ে মা'রধরের বি'ষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি চেয়েছিলাম বি'ষয়টি নিজেদের মধ্যে সমাধান করতে। তাই তাঁকে ডেকে আনি। তাঁকে কোনো প্রকার মা'রধর করা হয় নাই।’

XMA Header Image
জানতে চাইলে মা'দারীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রা'প্ত কর্মক'র্তা (ওসি) কামর'ুল ইসলাম মিঞা বেলা ২টার দিকে প্রথম আলোকে বলেন, ‘৯৯৯ থেকে কল পেয়ে আমর'া সকাল ১০টার দিকে আবাসিক হোটেল যাই। সেখান থেকে আমর'া মেয়েটির বাবাকে উ'দ্ধার করি। এ সময় মোস্তাফিজুরকে থানায় নিয়ে আসা হয়। ঘটনাটি যেহেতু শিবচরের, তাই আমর'া শিবচর থানার পুলিশের কাছে আ'সামিকে তুলে দিই।’

এ বি'ষয়ে শিবচর থানার ভারপ্রা'প্ত কর্মক'র্তা (ওসি) মিরাজ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে মোস্তাফিজুরকে আ'সামি করে মা'মলা করেন। মোস্তাফিজুরকে গ্রে''প্ত ার করা হয়েছে। কাল (রোববার) আ'সামি মোস্তাফিজুরকে আ'দালতে পাঠানো হবে।’

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *