২২ পরোয়ানার আসামি ‘প্রতারক’ দম্পতি গ্রেপ্তার

সমবায় ও আবাসন ব্যবসায় প্রতারণার মাধ্যমে ‘কোটি কোটি টাকা’ হাতিয়ে নেওয়ার অ'ভিযোগে ঢাকার কলাবাগান থেকে এক দম্পতিকে গ্রে''প্ত ার করেছে র‌্যাব'।

এরা হলেন- এইচএনএম সফিকুর রহমান (৫৯) এবং তার স্ত্রী কাজী সামছুল নাহার মিনা (৫৪)। শুক্রবার প্রথম প্রহরে তাদের গ্রে''প্ত ার করা হয়।

র‌্যাব'-৪ এর এক সংবাদ বিজ্ঞ'প্ত িতে জানানো হয়, সফিকুর ও তার স্ত্রীর নামে দেশের বিভিন্ন থানার মোট ২২টি মা'মলায় গ্রে''প্ত ারি পরোয়ানা রয়েছে।

সফিকুর রহমান ২০০২ সালে ‘আইডিয়াল কো-অ’পারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড’ নামে একটি সমবায় সমিতি চালু করেন। তিনি নিজে ছিলেন ব্যবস্থাপনা পরিচালক। পরিবারের অন্য সদস্যদের তিনি বিভিন্ন পদ দেন।

সংবাদ বিজ্ঞ'প্ত িতে বলা হয়, ওই সমবায় চালু করে তিনি লোকজনের কাছ থেকে ‘হাজার হাজার কোটি টাকা’ সংগ্রহ করেন এবং ‘প্রতারণার মাধ্যমে তা হাতিয়ে নিয়ে’ আইসিএল রিয়েল এস্টেট নামে একটি প্রতিষ্ঠান খুলে আবাসন ব্যবসা শুরু করেন।

“রিয়েল এস্টেট ব্যবসাতেও তিনি মানুষের সাথে প্রতারণা করে কোটি কোটি টাকা আ'ত্মসাৎ করেন।”

পরে ভুক্তভোগীরা থানায় এবং আ'দালতে ওই দম্পতির বিরু'দ্ধে মা'মলা করতে শুরু করে। তখন সফিকুর ও তার স্ত্রী আ'ত্মগো'পনে চলে যান বলে র‌্যাব'ের ভাষ্য।

সংবাদ বিজ্ঞ'প্ত িতে বলা হয়, “এর মধ্যে কোনো কোনো মা'মলায় আ'দালতে তাদের সাজার রায় হয়েছে। তাদের নামে ২২টি ওয়ারেন্ট ইস্যু হয়েছে। গ্রে''প্ত ার এড়াতে প্রতি দুই তিন মাস অন্তর তারা বাসা পাল্টানোর পাশাপাশি ক্রমাগত মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করছিলেন।”

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রে''প্ত ার দুজনই অ'ভিযোগের ‘সত্যতা স্বীকার করেছেন’ দাবি করে র‌্যাব' বলেছে, গ্রে''প্ত ার দুজনকে ইতোমধ্যে তারা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

About admin

Check Also

রিমান্ড শেষে কারাগারে মামুনুল

ছয় মা'মলায় ১৮ দিনের রি'মান্ড শেষে কারা'গারে পাঠানো হয়েছে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে। আজ শনিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *