যার পেটে খাবার নেই সে কি লকডাউন মানবে : মির্জা ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আমর'া লকডাউনের বিরোধিতা করছি না, আমর'া বলছি, অকার্যকর একটা শাটডাউন এটা। যে যেভাবে পারছে যাচ্ছে। পোশাক কারখানা খোলা রাখছে অথচ ব্যাংক বন্ধ রাখছে। মূলত সরকারের কোনো সমন্বয় নেই, কোনো পরিকল্পনা নেই, কোনো রোডম্যাপ নেই। এই যে সাতদিন লকডাউন তারপরে কী হবে সে বি'ষয়ে কোনো নির্দেশনা নেই।’মির্জা ফখরুল প্রশ্ন করেন, ‘যার পেটে খাবার নেই সে কি লকডাউন বা করো’না মানবে?

করো’না কি তাঁকে আট'কাতে পারবে? সাধারণ মানুষের তো খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে।’ আজ ম'ঙ্গলবার দুপুরে গু'লশানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপিনেতা এসব কথা বলেন।মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘এই রমজানে টিসিবি (সরকারের প্রতিষ্ঠান) নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। বরাবরের মতো এবারও সিন্ডিকেট দাম বাড়িয়েছে। আমা'দের সময় ছিল না তা বলব না। সবসময় ছিল তবে নিয়ন্ত্রণ করতে হয়। আগে রমজানের সময় টিসিবি পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ করত, সাধারণ মানুষের ক্রয়সীমায় রাখার চেষ্টা করত।

এবার সেই টিসিবি পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘রমজানকে সামনে রেখে সবজি, মাছ, মুরগি, গরুর মাংস, খেজুর, সব কিছুর দাম ক্রয়সীমা'র বাইরে। সরকার ২০০৮ সালে নির্বাচনের আগে ঘোষণা দিয়েছিল ১০ টাকা কেজি চাল খাওয়াবে। আর এখন চালের দাম কত সবাই জানে। এটার একটা উদ্যোগও তারা নিয়েছিল, তবে সাধারণ মানুষ নয় আওয়ামী লীগের লোকজন সেই সুবিধা পেয়েছে।’

মির্জা ফখরুল অ'ভিযোগ করে বলেন, ‘সরকারের দুর্নীতি চরম পর্যায়ে যাওয়ার কারণে, একদলীয় শাসনের কারণে প্রশাসনসহ কোথাও সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই। বিএনপির লোকজন, যারা বড় ব্যবসায়ী ছিলেন তারা গত কয়েক বছরে আওয়ামী লীগের দুঃশাসনে নিঃস্ব হয়ে গেছেন।’মোবাইল অ্যাপভিত্তিক মোটরসাইকেল রাইডারদের বি'ষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘যারা ঢাকা শহরে মোটরসাইকেলে রাইডিং করেন তারা গ্রাম থেকে এসেছেন একটু আয়ের আশায়। তাদেরও আজ আয়ের পথ বন্ধ হয়ে গেছে।’ মির্জা ফখরুল বলেন, ‘২৬ মা'র্চের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সরকার বিরোধী দলকে নিশ্চিহ্ন করছে।

এই লকডাউনের মাঝেও বিরোধী দল ও মতের লোকদের দমন করছে। বাকস্বাধীনতার অধিকার সবার আছে, অথচ সরকার বিরোধী মত দমন করতে একের পর এক আইন করছে। জনগণের বিরু'দ্ধে অবস্থান নিয়ে কোথাও কোনো সরকার টিকে থাকতে পারেনি।’ বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার বি'ষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সারা দেশের মানুষ খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া করছেন। আমর'া সবাই দোয়া করছি তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন। আমর'া সবসময় খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি চাই।’ মির্জা ফখরুল বলেন, ‘করো’না মোকাবিলায় আমর'া সবসময় বলছি একটা জাতীয় কমিটি করেন। সব রাজনৈতিক দল, এনজিও ও সুশীল সমাজের সমন্বয়ে। সেটা সরকার করছে না, করবে না। কারণ এটা করলে তো তাদের যে লুটপাট, দুর্নীতি বন্ধ হয়ে যাব'ে।’

About admin

Check Also

অসুস্থ খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া করায় চাকরি হারাল ইমাম

এবার ফেনীতে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া করায় সদর উপজে'লার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *