এক কলেজ থেকেই মেডিকেলে চান্স পেয়েছে ১৫০ জন শিক্ষার্থী

এক কলেজ থেকে এবার মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী। এমন সাফল্য দেখিয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা।

অভাবনীয় এ সাফল্যে খুশি শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অ'ভিভাবকরা। ঢাকা পোস্টকে এ তথ্য জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. রুহুল আমিন ভূঁইয়া।

কলেজ সূত্রে জানা গেছে, এ বছর ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে ৫২৬ জন শিক্ষার্থী বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উচ্চ মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় দেড় শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী উত্তীর্ণ হয়েছেন। চলতি বছর এ কলেজ থেকে জাতীয় মেধায় ৪২তম স্থান অর্জন করেছেন তনুশ্রী রাণী সুত্রধর ও ১৬৩তম স্থান অর্জন করেছেন জয়িতা বীর।

৪৫৪তম হয়ে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ভর্তি হবেন ফাতিমা বিনতে ইসমাইল। ৭৭২তম হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে উত্তীর্ণ হয়েছেন আব্দুল আহাদ। ৩৪২১তম হয়ে যশোর মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন আবু সালেহ আল কাদেরী। ১৮৯৮তম হয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজে উত্তীর্ণ হয়েছেন সাদিকা বিনতে বাশার নীলা। জাতীয় মেধায় ১৯৯২তম হয়ে শ’হীদ তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজ, গাজীপুরে ভর্তি হবেন চিকিৎসক দম্পতির সন্তান সানজিদা আখতার।

এ ছাড়াও কলেজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ ও শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক মোহা'ম্ম'দ শাহজাহানের দেওয়া তথ্য মতে, ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হবেন জান্নাতুল মাওয়া মুমু, ফারহানা রহমান, কাজী লামিয়া সুলতানা, নুসরাত জাহান। শ’হীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে পারভীন আক্তার, শারমিন আক্তার, নাজমা খাতুন। স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে সাবেকুন্নাহার শারমিন, সামিহা নুর, মর'িয়ম জাহান তামান্না, সাদিয়া রহমান আফনান, ফাহমিদা জাহান অনিকা।

শ’হীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে তানজিলা বিনতে ওয়াহিদ, নাজমুন নাহার বিথী। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে ওসমা হাবিব, সায়মা। ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে রুনা লায়লা, আয়শা সিদ্দিকা মিটু, আজাদুল ইসলাম। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে জান্নাত আক্তার লাভনী, উম্মে হালিমাতুস সাদিয়া, সাবিহা, জান্নাতুল মাওয়া অনামিকা।

শ’হীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজে সানজিদা। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে সাবিকুন নাহার সারমিন, মিথিলা আফরোজা মিটু ও ফারিয়া আক্তার। টা'ঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে নাফিসা তাবাসসুম তাসনিয়া। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজে সাদিকা বিনতে বাশার নীলা, হাফসা জান্নাত, মো. নাঈম রহমান। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে আফসারা তাহসিন, নাজমুল হোসাইন, জাকিয়া সুলতানা লিমা, অর্পি বারুয়া, অনন্তা কুমা'র ভৌমিক, ফাহিম ও মোস্তফা তানিন।

সিরাজগঞ্জ শ’হীদ মোহা'ম্ম'দ মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে নাজিলা হোসাইন সুপরা। নোয়াখালী আবদুল মালেক উল মেডিকেল কলেজে ফারজানা আক্তার সায়মা। মানিকগঞ্জ কর্ণেল মালেক মেডিকেল কলেজে প্রিতম দেব নাথ, সাকিব। দিনাজপুর মেডিকেল কলেজে এসএম মাসহিউর রহমান। খুলনা মেডিকেল কলেজে মো. সাব্বির বিন এনাম, মো. শাহাদাত। পাবনা মেডিকেল কলেজে হাফসা আক্তার, আব্দুল মান্নানসহ দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী বিভিন্ন সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন।

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে উত্তীর্ণ ফাতিমা বিনতে ইসমাইল বলেন, কলেজে না এলে ই-এটেনডেন্সের মাধ্যমে মা-বাবার মোবাইল ফোনে ক্ষুদে বার্তা চলে যেত। এরপর আবার প্রতি ক্লাসে হাজিরা দিতে হয়। সা'প্ত াহিক, মাসিক পরীক্ষা, করো’নাকালে অনলাইন ক্লাস, অনলাইন মূল্যায়ন পরীক্ষা আমা'দের বেসিক ক্যারিয়ার তৈরিতে সাহায্য করেছে। শিক্ষকদের ব্যতিক্রম উদ্যোগের ফলে প্রতি বছর অনেক শিক্ষার্থী এ কলেজ থেকে মেডিকেল কলেজ, প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায়।

তারা বলেন, আমা'দের প্রত্যাশা এ ধা'রা অব্যা'হত থাকুক। যদি শ্রেণিকক্ষ ও অবকাঠামোগত সুবিধা বাড়ানো হয়, দূর-দূরান্তের শিক্ষার্থীদের জন্য কলেজের পক্ষ থেকে আবাসিক সুবিধা থাকতো তাহলে ফলাফল আরও ভালো 'হতো। শিক্ষার্থীরা উপকৃত 'হতো।

বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মাসুদা তোফা ও ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জুবাইদা নূর খান বলেন, ভিক্টোরিয়া কলেজের পাঠচর্চা, পাঠপরিকল্পনা অন্য প্রতিষ্ঠান থেকে ভিন্ন। এখাকার প্রতিটি শিক্ষক মেধাবী ও জ্ঞানের চর্চা করেন। আমা'দের ছেলে-মেয়েরাও মেধাবী ও পরিশ্রমী। কারোনাকালে উচ্চ মাধ্যমিকের তিন বিভাগের ৭ শতাধিক ভিডিও ক্লাস প্রচার করা হয়েছে। অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। শিক্ষার ধা'রাবাহিক এ চর্চা মেডিকেলসহ সকল প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের এগিয়ে রাখবে। তারা পরবর্তী জীবনে যেকোনো কাজে ভালো করবে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আবু জাফর খান বলেন, ভালো ফলাফলের কোনো পক্ষ নেই। শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অ'ভিভাবক সবাই চায় ভালো ফলাফল। সবাই আমর'া এক পক্ষ। অ'ভিভাবক সমাবেশে আমর'া বলেছি, ছাত্র-ছাত্রী আমা'দের কাছে থাকে চার ঘণ্টা। বাসা বাড়িতে থাকে ২০ ঘণ্টা। তাই অ'ভিভাবকের দায়িত্ব বেশি। এ কলেজ থেকে ২০১৭ সালে ১৩৬ জন, ২০১৮ সালে ৯৯ জন, ২০১৯ সালে শতাধিক, ২০২০ সালে ১৬৮ জন ও চলতি বছর দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। সবাইকে অ'ভিনন্দন। ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয় ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি কার্যক্রম শেষ হলে আমর'া সংবর্ধনার আয়োজন করব। সুত্র: ঢাকা পোস্ট

About admin

Check Also

খেলতে যাই

খেলতে যাই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *