এভাবে যদি চলে তাহলে তো আমি প্রবলেমে পড়ে যাবো: মামুনুলের নারীসঙ্গী

হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হকের রিসোর্টকাণ্ড নিয়ে বিস্তারিত বিবরণ উঠে এসেছে তার সেই নারীস'ঙ্গী জান্নাত আরা ঝর্ণার একটি কথোপকথনে।

সোনারগাঁওয়ের স্থানীয় এক হেফাজত নেতার স'ঙ্গে ঘটনার দুই দিন পর প্রায় আট' মিনিট ১১ সেকেন্ড কথা বলেন ঝর্ণা। ঘটনার দিন স্থানীয় জনতা তাদের ঘেরাও করার সময় কে কী বলেছিলেন এবং এর পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহও উঠে এসেছে তাদের কথোপকথনে।

এমনকি ঝর্ণার বোরকার রং নিয়ে যারা সংশয় প্রকাশ করেছিলেন, সেই বি'ষয়টিও পরিষ্কার করেছেন ঝর্ণা নিজেই। আলাপে ঝর্ণা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, মামুনুল হক কারও কারও কাছে তাকে না চেনার বি'ষয়ে বলেছেন। এতে তিনি বিপদে পড়ে যেতে পারেন বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেন।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, ঝর্ণার এই কথোপকথনে স্পষ্ট হয় যে মাওলানা মামুনুল হক নারীস'ঙ্গীসহ আট'ক হওয়ার পর থেকে একধারে মিথ্যাচার করে চলেছেন। ওই নারীর স'ঙ্গে তার বৈধ কোনও সম্পর্ক ছিল না। এখন ‘সম্মান’ বাঁচাতে তিনি অকপটে একটার পর একটা মিথ্যা বলে চলছেন।

ফাঁ' স হওয়া এই কথোপকথন পাঠকদের উদ্দেশে তা প্রায় হুবহু তুলে ধ’রা হলো-

জান্নাত আরা ঝর্ণা: এইটার ফিনিশিং কী হবে?

জনৈক হেফাজত নেতা: এহন একটা খবর পাইলাম। যে এহসান সাব বললো যে, তুমি একটু থানায় যাও। থানার পরিস্থিতিটা কী, মা'মলা করবে আরকি। এই জন্য আমি থানায় যাচ্ছি।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: আচ্ছা কীসের জন্য মা'মলা করবেন?

জনৈক হেফাজত নেতা: এই যে তারা বেইজ্জতি করছে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: এই জন্য মা'মলা করবে? এইটা মিটাবে কীভাবে? এটা তো সরকার, থানাতে গেলে তো ডকুমেন্ট চাইবে। তখন কীভাবে কী করবেন?

জনৈক হেফাজত নেতা: এখন আজকে তিনটার সময় সাংবাদিক সম্মেলন আছে তো। তখন বলা যাব'ে কী হবে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: আচ্ছা, সাংবাদিক সম্মেলন আছে। সবকিছু ঠিক আছে। যদি আমাকে এর ভেতরে ডাকে তাহলে অবশ্যই কিন্তু.. মানে আমা'র…ইনফর্ম না করে আবার হঠাৎ করে ডাইকেন না। তাহলে…

জনৈক হেফাজত নেতা: এখন এইখানে হুজুরে নাম বলছে আমেনা তৈয়বা। এখন আমি যখন আপনাকে বলছি আপনার নাম কী আপনি বলছেন ঝর্ণা।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: এই বি'ষয়টা আমি ভালো করে আপনাকে ক্লিয়ার করতেছি। যেটা হচ্ছে যে হুজুর যখন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আসছিল, যখন হুজুর প্রথম… একদম প্রথম দফা তারা যখন জেরা করতেছিল, তখন সে বলছে আমা'র স্ত্রীর নাম হচ্ছে আমেনা তৈয়বা। ঠিক আছে। তারপর যখন তারা চলে গেল, টিএনও সাহেব আসলো, এসআই আসলো, সাংবাদিকদের সবগু'লারে বের করে দিল, তখন আমি শুনতেছিলাম যে হুজুর বলছে যে এটা আমা'র সেকেন্ড ওয়াইফ। আমি বিয়ে করেছি আমি কোনও অবৈ'ধ কিছু করি নাই। যখন তিনি সেকেন্ড ওয়াইফ বলছে তারপর আমাকে জেরা করা হইছে। এখন আমি কীভাবে ফেইক বলি। আমি তো তার বাবার নাম জানি না। আমি কী করে কী বলবো, বলেন? আমাকে তো আলাদা জেরা করছে। এটা নিয়ে লাস্টে কী…

জনৈক হেফাজত নেতা: তারপর মনে করেন আমাগো লোকজন বেশি আবেগ দেখাইতে গিয়া আপনার ছবিগু'লা বিকৃত করতেছে। এইটা… ওইটা… বিভিন্ন কথাবার্তা লেখতেছে। এইটা জান্নাত আরা ঝর্ণা হইতে পারে না। এগু'লো নিয়ে লেখালেখি করতেছে। জিনিসটা আরও বেশি বাড়তেছে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: এই জিনিসটা ক্লিয়ার হওয়া দরকার।

জনৈক হেফাজত নেতা: আমি মনে করি ওয়াশ রুমে আপনার যে ইন্টারভিউ নিছে। আপনার নাম-ঠিকানা, এইটা তো সত্য তাই না?

জান্নাত আরা ঝর্ণা: এইটা হান্ডের্ড পারসেন্ট সত্য।

জনৈক হেফাজত নেতা: আর ওই যে বোরকার কালার নিয়ে যে… কেউ বলতেছেন কালা বোরকা, কেউ বলতেছেন ব্লু কালার। আমি সাথে যখন ছিলাম তখন তো দেখলাম ব্লু কালারের বোরকা'টা।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: ব্লু কালারের ওপরের খিমা'রটা (হিজাব) ছিল, নিচের কালারটা ছিল কালো কালার। এইটা লাস্টে কী হইতে পারে? আপনার কী ধারণা হচ্ছে?

জনৈক হেফাজত নেতা: আমা'দের ধারণা এখন মানে আমা'র যেইটা এখন… এগু'লা নিয়ে বাড়াবাড়ি করলেই আরও বেশি সমস্যা। হুজুরে এখন আসবে শুনছি, আমি যেভাবে পারছি যে হুজুর এই মুহূর্তে সোনারগাঁও না আসাটা ভালো। আসার দরকার নাই। যতটুকু হইছে হইছেই। কারণ এখানে ক্ষয়ক্ষ'তি তো কম হয় নাই। কারণ জিনিসটা আরও বাড়বে। মানে প্রশাসনের স'ঙ্গে আমর'া যু'দ্ধ কইরা এই মুহূর্তে পারবো না। যতটুকু করছি ততটুকুই আল্লাহ উ'দ্ধার করতে পারছে দুই জনকে। এইটাই বেটার ছিল।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: হুজুর…আপনারা মনে করতেছেন যে ওনার নরম হওয়া দরকার?

জনৈক হেফাজত নেতা: নরম বলতে কী ওইভাবে নরম না। মানে যখন গরম হওয়ার দরকার গরম হইতেই হইবো। আমর'া চাচ্ছি না যে ইচ্ছাকৃতভাবে জিনিসগু'লো আরও ছড়াইতে। এই আর কি।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: ওহ।

জনৈক হেফাজত নেতা: কারণ সোনারগাঁও যদি আবার আসে, স্বাভাবিক প্রবলেম হইতে পারে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: আপনারা বললে কি সে শুনবে না?

জনৈক হেফাজত নেতা: আমি চেষ্টা করতেছি, আমা'র মুরুব্বিদের স'ঙ্গে কথাবার্তা বলতেছি, দেখি কী বলে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: সে আবার কোথায় কোথায় অস্বীকার করছে আমি তাকে… সে আমাকে চিনে না।

জনৈক হেফাজত নেতা: না, এখন তো অস্বীকার না, এখন যেখানে যেখানে অস্বীকার করছে…মানে কী বলবো। মানুষ যখন বিপদে পড়ে তখন মনে করেন মাথা ঠিক থাকে না। বুঝেন নাই?

জান্নাত আরা ঝর্ণা: হ্যাঁ।

জনৈক হেফাজত নেতা: উনি দেখতেছে যে ওনার যে মোবাইলটা দিয়ে কথা বললে ফোন ফাঁ'স হইয়া যাইতেছে, আবার এই নাম্বার দিয়াই সবার লগে কথা বলতেছে। এইটা সাথে সাথে ফোনালাপটা দিয়া দিতাছে সাংবাদিকদের, ইন্টারনেটে। এই হলো অবস্থা।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: ওই কাজগু'লো নতুন কারও ফোন দিয়া ফোন দিতে পারতেছে না?

জনৈক হেফাজত নেতা: এটাই তো। এই নাম্বার দিয়া ওনার ওয়াইফরে ফোন দিছে যে তুমি বি'ষয়টা টেনশন কইরো না। সাক্ষাতে বলবো। সে আমা'র স্ত্রী না। তোমা'র কাছে আইসা আমি বলতেছি। এইটাতে গোমর' ফাঁ'স হইয়া গেছে। যে হুজুর প্রথম স্ত্রীর কাছে নাকচ করছে। এইটা মানি প্রচার হইছে না? একটা দুইটা ইয়া করা যায়। কিন্তু প্রবলেম।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: ওইখানে বলছে মানে বউ মানে ওইখানে যেন ঠিক থাকে।

জনৈক হেফাজত নেতা: উনি বলছে, যে বড় খালাম্মাকে বলতেছে আরকি, টেনশন কইরো না। আমি সাক্ষাতে আইসা বলতেছি। সে অন্যের স্ত্রী, আমা'র স্ত্রী না। হয়তো বড় খালাম্মা'রে সান্ত্বনা দিতে কথা বলতেছে। পরে বলছে ঠিক আছে, তুমি বাসায় আসো। এই কথাটা ফাঁ'স হয়ে গেছে। আবার মনে করেন ওনার বোন বলছে যে, ভাবি, খালাম্মা'রে বলতেছে যে ভাবি, আপনি বলবেন যে আমি জানি, সবকিছু জানি। আমা'দের পারিবারিক… আম্মা থাকা অবস্থাতেই বিয়ে হইছে। এইটাও ফাঁ'স কইরা দিছে। কোনোকিছু তো থাকতেছে না। এই নাম্বারটা দিয়ে কথা বললেই তো ফাঁ'স হইয়া যাইতেছে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: আপনারা যা বলতেছেন, আমা'র মনে হইতেছে উনি পুরা নিজে ফাঁ'ইসা গেছে।

জনৈক হেফাজত নেতা: নিজের লাইগাই ফাঁ'সতেছে।

জান্নাত আরা ঝর্ণা: হ্যাঁ।

জনৈক হেফাজত নেতা: এখন আমর'া এত মর'্মা'হত, এত কষ্টে আছি। ভাবছি, উনি তো বিপদেই আছে, উনি কেমন কষ্টে আছে। এখন আমর'া কিছু করতে পারতেছি না। আমি হ্যাং হয়ে গেছি। বুঝছেন না? আর আপনি কোনও সমস্যা নাই তো না?

জান্নাত আরা ঝর্ণা: এখন কোনও সমস্যা নাই। কিন্তু আপনাদের মুখ দিয়ে যা শুনতেছি এভাবে যদি বলে তাহলে তো আমি আমা'র মানে প্রবলেমে পড়ে যাব'ো।

জনৈক হেফাজত নেতা: না, প্রবলেম কী এখন। আপনার আর হুজুরের কথা তো এক থাকতে হবে, তাই না?

জান্নাত আরা ঝর্ণা: আমা'র কথা আর হুজুরের কথা এক থাকতে হবে। কিন্তু সে এখন একেকজনের কাছে একেক কথা বলতেছে। সেইগু'লা ফাঁ'সও হয়ে যাইতেছে। তাহলে আমা'র কথা আর তার কথা কি এক থাকবে? উনি একস'ঙ্গে কেন অটল থাকতে পারলো না? টিএনও সাহেব যখন বললো, যখন ওসি সাহেবকে বললো, আমি রেকর্ড করে রাখতে পারি নাই। তখন সাংবাদিক ছিল না। তখন উনি যখন এই কথাগু'লো বললো, তখন উনি এই কথাগু'লোর ওপর অটল থাকলেই তো হয়ে যেত। সত্যর জানেন সবসময় না জয় হয়, আর মিথ্যার সবসময় অ’পমৃ'ত্যু হয়। উনি কেন মিথ্যার আশ্রয় নিলো?

About admin

Check Also

খেলতে যাই

খেলতে যাই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *