ভিডিও ভাইরালের ভয়েই আ’ত্ম’হ’ত্যা করে রংপুরের সেই মেয়েটি

দুই বউকে তালাক দেওয়া হাফিজুর রহমান (২৫) মিষ্টি কথায় ভুলিয়ে প্রেমের জালে ফেলেন নবম শ্রেণির ছাত্রীকে। এরপর জড়ান অন্তর'ঙ্গ সম্পর্কে।

আর তার দৃশ্য ধারণ করেন বন্ধু বিপুল চন্দ্র (২৬)। পরে সেই ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার কথা বলেও একাধিকবার ধ'র্ষণ করা হয় কিশোরীকে। ওই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার ভয়েই আ'ত্মহ'ত্যা করে মেয়েটি।

অন্তর'ঙ্গ ভিডিও ফাঁ'সের ঘটনায় হাফিজুর রহমানকে গ্রে'ফতারের পর বুধবার (২৪) দুপুরে এসব কথা বলেন অ’পরাধ ত'দন্ত বিভাগের (সিআইডি) ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম।

সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, রংপুর জে'লার বদরগঞ্জ থানাধীন ১৫ নম্বর লাহোনীপাড়া ইউনিয়নের কাচাবাড়ি গ্রামের নবম শ্রেণির এক ছাত্রী গত ৫ জানুয়ারি বি'ষপানে আ'ত্মহ'ত্যা করে। এ ঘটনায় কোতোয়ালী থানায় একটি অ’পমৃ'ত্যুর (ইউডি) মা'মলা হয়।

ঘটনার ত'দন্তে জানা যায়, ওই এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য ইউনুস আলীর ছেলে হাফিজুর রহমান মেয়েটিকে প্রেমের ফাঁ'দে ফেলে ধ'র্ষণ করেন ও সহযোগী বিপুল চন্দ্রকে দিয়ে মুঠোফোনে ভিডিও ধারণ করান। ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভ'য় দেখিয়ে কিশোরীকে একাধিকবার ধ'র্ষণ করেন হাফিজুর রহমান।

ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার আশঙ্কায় মেয়েটি নিজের ও পরিবারের মর'্যাদাহানির কথা চিন্তা করে বি'ষপান করে। তাকে বদরগঞ্জ উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে বলেন। পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মেয়েটি মা'রা যায়।

শেখ নাজমুল বলেন, গত ২২ ফেব্রুয়ারি ভিডিওটি ওই এলাকায় ভাইরাল হয়। এরপর কিশোরীর বিধবা মা বাড়ি ছাড়েন। তিনি কোথায় গেছেন প্রতিবেশীরা কেউই তা জানত না, বাড়িতে তখন তালা ঝুলছিল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার দুই ব্যক্তি অ'ভিযোগ করেন, হাফিজুর রহমান মেয়েটিকে ব্ল্যা'কমেইল করায় মেয়েটি আ'ত্মহ'ত্যার পথ বেছে নেয়। হাফিজুর রহমানের এলাকার লোকজন বলেন, হাফিজুর দুটি বিয়ে করে। দুই স্ত্রীকেই তালাক দিয়েছে। অনুসন্ধানের সময় তাকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। তবে তার বাবা ইউনুছ দাবি করেন, তিনি ইউপি নির্বাচন করবেন, তাই তার পরিবারকে ঘায়েল করতে ছেলের নামে অ’পপ্রচার চালানো হচ্ছে।

ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম বলেন, অ’পরাধ সং'ঘটনের পরই সিআইডি ছায়া ত'দন্ত শুরু করে। অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর এ ঘটনায় জড়িত হাফিজুর রহমানকে ঢাকা জে'লার আশুলিয়া থানাধীন জামগড়া এলাকা থেকে ম'ঙ্গলবার গ্রে'ফতার করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার স'ঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছে হাফিজুর রহমান। তবে ভিডিওটি ভাইরাল করে বিপুল চন্দ্র। তাকে এখনও গ্রে'ফতার করা সম্ভব হয়নি। বিপুলকে আট'ক করা গেলে আরও অনেক প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাব'ে।

About admin

Check Also

খেলতে যাই

খেলতে যাই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *